নিজের নামে রিংটোন তৈরি করার স্টেপ বাই স্টেপ গাইডলাইন

নিজের নাম দিয়ে রিংটোন তৈরি করুন ৩০ সেকেন্ডে ! কি? অবাক হচ্ছেন? ভাবছেন নিজের নাম ব্যবহার করে রিংটোন বানানো কি সম্ভব? জ্বি হ্যাঁ, অবশ্যই সম্ভব। শুধু তাই নয়, নিজের নামে রিংটোন বানিয়ে সেটি ডাউনলোড করে মোবাইলে ফোনে সেটও করা যায়। কিভাবে?একটু পরেই জানতে পারবেন।
মোবাইলের রিংটোন প্রতিটি মানুষের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। আমরা প্রত্যেকেই আমাদের ফোনে রিংটোন সেট করি। যাতে করে ফোনকল আসলে সেটি রিসিভ করতে কখনোই আমাদের কোনো অসুবিধা না হয়।
আমাদের প্রত্যেকের চাওয়া থাকে যেন আমাদের ফোনের রিংটোন ইউনিক হয় এবং সবাই যেন রিংটোন শোনার পর ভালো কমপ্লিমেন্ট দেয়। রিংটোন হিসেবে সাধারণত বিভিন্ন সাউন্ড বা বিভিন্ন গানের অংশবিশেষ সেট করা হয়।
তবে এখন রিংটোনের ধরণে এসেছে পরিবর্তন। বর্তমানে বহু মানুষের মধ্যে তাদের নিজের নামে রিংটোন বানানোর ট্রেন্ড লক্ষ্য করা যায়। বিশেষ করে যারা কাস্টমাইজড রিংটোন পছন্দ করেন এবং চান তাদের ফোনের রিংটোনে নিজের নাম থাকুক, তারা কিন্তু এখন অহরহই নিজের নামে রিংটোন তৈরি করছেন।
তবে এক্ষেত্রে বলে রাখা ভালো, আপনারা সরাসরি নিজেদের স্মার্টফোনের কোনো বিল্ট-ইন ফিচারের সাহায্যে নিজের নামে রিংটোন তৈরি করতে পারবেন না। বরং এক্ষেত্রে আপনাদেরকে কিছু ওয়েবসাইটের বা অ্যাপলিকেশনের সাহায্য নিতে হবে।
এখন আপনারা নিশ্চয়ই জানেন, সব ওয়েবসাইট সবার ব্যবহারের জন্য নিরাপদ নয়। অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে, যেগুলো ব্রাউজ করার পর ভাইরাসের আক্রমণ হয় অথবা হ্যাকিং জনিত বিভিন্ন সমস্যা ফেস করতে হয়।
এ কারণেই সবার কথা মাথায় রেখে আজকের এই আর্টিকেলে আমি আপনাদের জানাবো সবচেয়ে নিরাপদ উপায়ে কিভাবে নিজের নামে রিংটোন বানাবেন, কিভাবে নিজের নাম দিয়ে রিংটোন ডাউনলোড করবেন এবং নিজের নাম দিয়ে রিংটোন বানানোর সফটওয়্যার সম্পর্কে।
তাই আর্টিকেলটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ুন এবং খুব সহজে নিজের নামে রিংটোন তৈরি করুন মাত্র ৩০ সেকেন্ডে!
নিজের নামে রিংটোন তৈরি করার স্টেপ বাই স্টেপ গাইডলাইন

 

নিজের নামে রিংটোন বলতে কি বোঝায়?

নিজের নামে রিংটোন বানানো সম্পর্কে তো জানাবোই, তার আগে চলুন জেনে নেয়া যাক রিংটোন বলতে আসলে কি বোঝায়। আমরা বেশির ভাগই রিংটোন ও কলারটিউন কে একটি বিষয় মনে করি। কিন্তু আসলে এই দুটির মধ্যে সূক্ষ্ম পার্থক্য রয়েছে।
খুব সহজ কথায় রিংটোন হচ্ছে যখন কেউ আমাদেরকে কল করে, তখন আমাদেরকে এ কল সম্পর্কে অ্যালার্ট করার জন্য মোবাইলে যে সাউন্ডটি বেজে ওঠে। পক্ষান্তরে কলারটিউন হচ্ছে কাউকে কল করার পর সে কলটি রিসিভ করার আগে আমরা যে কথা বা সাউন্ড শুনতে পাই।
এখন নিজের নামে রিংটোন হলো সেসব রিংটোন যে রিংটোনের মধ্যে আপনার নাম ইনক্লুডেড থাকে।  অর্থাৎ এ রিংটোন এমন এক ধরনের রিংটোন যেটির সাউন্ডের মধ্যে আপনার নামও শোনা যাবে। কি দারুন ব্যাপার, তাইনা?
আমি আজকের লেখার শুরুতেই বলেছি নিজের নামে রিংটোন বানানো এখনকার সময়ের একটি ট্রেন্ডি বিষয়। অনেকেই রয়েছেন যারা তাদের বন্ধু-বান্ধব বা পরিবারের মানুষকে কোন বিশেষ দিনে চমকে দেওয়ার জন্য তাদের নামে রিংটোন তৈরি করেন। তারপর সেই রিংটোন তাদের গিফট করেন।

কিভাবে নিজের নামে রিংটোন বানাবেন?

নিজের নামে রিংটোন বানানো কিন্তু খুবই সহজ। এটির প্রসেস এতই সহজ যে যদি একটি ছোট বাচ্চাকেও শিখিয়ে দেই, তাহলে সেও এটি করতে পারবে।
এক্ষেত্রে সবচেয়ে মজার বিষয় হলো নিজের নামে রিংটোন বানানোর জন্য প্লে-স্টোর কষ্ট করে থেকে কোন অ্যাপ্লিকেশন ইন্সটল করা বাধ্যতামূলক নয়।  বরং ওয়েবসাইটের মাধ্যমে এই কাজটি করা সম্ভব।

প্রথম উপায়

আমি শুরুতেই সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং একইসাথে সবার ব্যবহারের জন্য সম্পূর্ণ নিরাপদ এমন একটি ওয়েবসাইট সম্পর্কে জানাবো। নিজের নাম দিয়ে রিংটোন বানানোর কাজটি শুরু করার জন্য প্রথমেই  আপনার পছন্দের যেকোন ব্রাউজার ওপেন করুন। এক্ষেত্রে গুগল ক্রোম, মজিলা ফায়ারফক্স বা অপেরা – যেকোনো একটি ব্রাউজারের সাহায্য নিতে পারেন।
ব্রাউজার ওপেন করার পর সরাসরি চলে যান সার্চ বারে এবং সেখানে টাইপ করুন FDMR.  এরপর কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই দেখতে পাবেন  সার্চ রেজাল্টে আমাদের কাঙ্ক্ষিত ওয়েবসাইটটি চলে এসেছে। বলে রাখা ভালো, FDMR নামক ওয়েবসাইটটি সবার ব্যবহারের জন্য সম্পূর্ণ সিকিউরড। তাই এবার দেরি না করে সে ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন।
FDMR নামক ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার পরপরই আপনারা নিজের নামে রিংটোন বানানোর অপশন দেখতে পাবেন। সেই অপশনে ক্লিক করার পর  রিংটোন বানানোর জন্য একটি সার্চ বক্স দেখতে পাবেন। এই সার্চ বক্সে  নিজের নাম অথবা যার নামে রিংটোন তৈরি করতে চাইছেন তার নাম টাইপ করুন।
তবে কখনো নিজের নামে রিংটোন বাংলা ভাষা ব্যবহার করে তৈরি করতে যাবেননা। অর্থাৎ বাংলা কিবোর্ড দিয়ে টাইপ করতে যাবেন না। কারণ এই ওয়েবসাইট বাংলা অক্ষর ডিটেক্ট করতে পারে না। তাই বাংলা কিবোর্ডে টাইপ করলে এরর দেখানোর সম্ভাবনাই বেশি।
নাম টাইপ করা হয়ে যাওয়ার পরে যে ছোট্ট সার্চ আইকনটি দেখতে পাবেন সেটিতে ক্লিক করুন। এই আইকনে ক্লিক করার পর পর নিজের নাম দিয়ে রিংটোন এর অনেকগুলো অপশন দেখতে পাবেন। অর্থাৎ তখন আপনি সার্চ রেজাল্টে এমন অনেকগুলো রিংটোন দেখতে পাবেন যে রিংটোনগুলোর প্রতিটিতে আপনার নাম রয়েছে। এখন এ রিংটোন গুলোর মধ্যে প্রতিটি সময় নিয়ে শুনুন। তারপর যে রিংটোনটি ভালো লাগবে সেটি ডাউনলোড করে নিজের ডিভাইসে সেভ করে ফেলুন৷
আমি জানি এখন আপনারা সবাই আমাকে জিজ্ঞেস করবেন, “আমার নামের রিংটোন ডাউনলোড করবো কিভাবে? ” এ কাজটিও কিন্তু একদম পানির মতোই সহজ।  সার্চ রেজাল্টের প্রতিটি রিংটোন শোনার সময় সেখানে ডাউনলোড অপশন দেখতে পাবেন।
এ অপশনটিতে ক্লিক করার পরে দেখতে পাবেন স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনি নিজের নামে রিংটোন, অর্থাৎ যেটি কিছুক্ষণ আগেই তৈরি করেছেন সেটি ডাউনলোড হয়ে যাবে। ডাউনলোড করার পর সেটি ফোনে সেট করে নিন।

দ্বিতীয় উপায়

এবার নিজের নামে রিংটোন বানানোর আরেকটি ওয়েবসাইট নিয়ে জানাবো। এই ওয়েবসাইটের নাম Prokerala. এই সাইটেও খুব সহজে নিজের নাম দিয়ে রিংটোন বানানো যায়। এজন্যে আগের প্রসেসের মতো শুরুতেই নিজের পছন্দের ব্রাউজার ওপেন করে সার্চবারে লিখে ফেলুন Prokerala, অথবা চাইলে এই আর্টিকেল পড়ার পর সরাসরি এখান থেকেও ক্লিক করে ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে পারেন।
ওয়েবসাইটে প্রবেশের পর Enter your Name অপশনে অবশ্যই নিজের নাম বা যার নামে রিংটোন বানাতে চান তার নাম ইংরেজিতে টাইপ করুন। এরপর Choose Text Message অপশনে আপনি রিংটোনে কেমন ধরণের মেসেজ ইনক্লুড করতে চান সেটিও ইংরেজি কিবোর্ডের সাহায্যে টাইপ করুন। তারপর Select Background Music অপশনে গিয়ে রিংটোনের মধ্যে নিজের মনমতো একটি ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক সিলেক্ট করুন।
তিনটি অপশনের কাজ শেষের পর Make Ringtone এ একটি ক্লিকের মাধ্যমেই তৈরি হয়ে যাবে আপনার রিংটোন। এবার ডাউনলোড করে নিন রিংটোনটি এবং সেট করে নিন নিজের ফোনে।
আরও পড়ুনঃ নিজের ছবি আরও সুন্দরও আকর্ষণীয় করুন। ছবি সাজানো সফটওয়্যার।

FDMR নাকি Prokerala : কোন ওয়েবসাইট ব্যবহার করবেন?

এবার আসা যাক FDMR ও Prokerala সাইট দুটির কম্পারিজনে। আমার কাছে মনে হয়েছে Prokerala নামের এই ওয়েবসাইটে নিজের নামে রিংটোন বানানোর জন্য কাস্টমাইজেশনের সুযোগ বেশি। অপরদিকে FDMR সাইটটি ব্যবহার করে রিংটোন বানানো তুলনামূলকভাবে সহজ। তবে দুটি সাইট থেকেই নিজের নাম দিয়ে রিংটোন ডাউনলোড করা সম্ভব। তাই নিজের সুবিধামতো যেকোনো সাইট ব্যবহার করতে পারেন।

শেষ কথা

আমরা চলে এসেছি আজকের লেখার শেষ অংশটুকুতে। আমি চেষ্টা করি নিজের নলেজ থেকে সর্বোচ্চভাবে আপনাদের সাহায্য করার। তাই নিশ্চিন্তে এই লেখাটির গাইডলাইন ফলো করুন এবং নিজের নামে রিংটোন ডাউনলোড করুন মাত্র ৩০ সেকেন্ডে! যদি এই লেখাটি আপনাদের ভালো লাগে তাহলে সবার সাথে শেয়ার করতে ভুলবেননা এবং আমাদের সাথেই থাকুন!

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top