ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ২০২২ | ভাদ্রমাসের বিয়ের তারিখ ১৪২৯

আপনি যদি ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ২০২২ নিয়ে জানতে চান, তাহলে এই লেখাটি আপনারই জন্যে। বিয়ে প্রতিটি মানুষের জীবনের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি অধ্যায়। এ অধ্যায়ের সাথে সারাজীবন ভালো থাকার বিষয়টি জড়িয়ে থাকে। যারা হিন্দু ধর্মাবলম্বী রয়েছেন, তাদেরকে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হতে গেলে বাংলা মাসের বিয়ের তারিখ সম্পর্কে জানতে হয়। আজকের লেখায় আমি আপনাদের জানাবো ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ২০২২ সম্পর্কে। আশা করি লেখাটি আপনাদের উপকারে আসবে৷ 

 ভাদ্রমাসের-বিয়ের-তারিখ-

বিয়ে- একটি আজীবনের বন্ধন 

বিয়ে পৃথিবীর সবচাইতে পবিত্র বন্ধন গুলোর মধ্যে একটি। বিয়ের মাধ্যমে একজন পুরুষ ও একজন নারী সারা জীবন দুজনের বিপদে-আপদে ও সুখে-দুখে একজন আরেকজনের পাশে থাকার জন্য অঙ্গীকারবদ্ধ হন। বিয়ের মাধ্যমে দুজন মানুষ স্বামী-স্ত্রী হিসেবে জীবনযাপন করা শুরু করেন৷ তারা হয়ে ওঠেন পরস্পরের আত্মার সংগী৷ 

প্রতিটি বিয়েতে শুধু দুটি মানুষই নয়, বরং দুটি পরিবারের মধ্যে ও পরম আত্মীয়তার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। তাই একটি বিয়ে ঘিরে প্রতিটি পরিবারের মধ্যেই থাকে নানা রকম আশা-আকাঙ্ক্ষা ও স্বপ্ন। প্রতিটি বাবা মা চেষ্টা করেন নিজেদের সাধ্যমতো আয়োজন করার মাধ্যমে তাদের প্রাণপ্রিয় সন্তানের বিয়ের আয়োজন করতে। 

প্রতিটি ধর্মেই বিয়ের জন্য একটি নির্দিষ্ট নিয়ম অনুসরণ করা হয়৷ বিয়ের অনুষ্ঠানে সেই ধর্মের নিয়মকানুন মেনেই বিয়ের যাবতীয় কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়৷ হিন্দু ধর্মও এর ব্যতিক্রম নয়। হিন্দু ধর্মের বিয়েতে নির্দিষ্ট কিছু নিয়মকানুন অনুসরণ করা হয়। 

হিন্দু ধর্মের বিয়ের একটি অন্যতম দিক হলো বাংলা মাসের শুভ একটি দিন ও লগ্ন দেখে বিয়ের তারিখ ঠিক করা৷ এই ধর্মে চাইলেই যেকোনো দিন বিয়ে করা যায়না৷ বরং অবশ্যই আগে দেখে নিতে হয় যে কোন মাসের কোন দিনটি বিয়ের জন্য শুভ। যারা বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হতে চলেছেন, তাদের সারাজীবন যেন সুখে ও আনন্দে কাটে তা নিশ্চিত করার জন্যই এটি করা হয়। 

ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ২০২২ সম্পর্কে কেন জানবেন?

ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ২০২২ সম্পর্কে জানার আগে চলুন আমরা জেনে নেই এই বিয়ের তারিখ গুলো সম্পর্কে কেন জেনে রাখা প্রয়োজন। সাধারণত প্রতিটি হিন্দু বিয়ে অনেকগুলো ধারাবাহিক আচার বিধি মেনে সম্পন্ন করা হয়৷  হিন্দু বিয়ে যেন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়, সে কারণে প্রতিটি বাংলা মাসের কোন কোন তারিখ বিয়ের জন্য শুভ সেটি জানা থাকা অত্যন্ত জরুরী। 

কেননা এই ধর্মের বিয়েতে শুরুতেই ছেলে-মেয়ের জন্মতারিখ বিবেচনা করে তাদের জন্মতিথি দেখে এমন একটি শুভ তারিখে তাদের বিয়ের দিন নির্ধারণ করা হয়, যাতে করে তারা তাদের পরবর্তী জীবনে কোনো রকম অসুবিধার সম্মুখীন না হয় ও গোটা জীবন সুখে শান্তিতে কাটাতে পারে। এক্ষেত্রে শুধুমাত্র তারিখই নয়, বরং কোন তারিখের কোন মুহূর্ত বা লগ্ন বিয়ের জন্য সবচাইতে শুভ সেটিও নির্ধারণ করা হয়। সুতরাং বলা যেতে পারে, প্রতিটি হিন্দু ধর্মের বিয়ে সুসম্পন্ন হতে হলে একটি শুভ দিন ও একটি শুভ লগ্ন – দুটিই অনেক গুরুত্বপূর্ণ। 

এই বিয়ের তারিখ দেখার কাজটি গুরুজনরা পঞ্জিকা দেখে তাদের বিবেচনার মাধ্যমে করে থাকেন। তবে  অনেক সময় অনেকের কাছে পঞ্জিকা থাকে না, আবার পঞ্জিকাতে খুঁজেও পাওয়া যায় না। পাশাপাশি বর্তমানে তথ্যপ্রযুক্তি ভিত্তিক যুগ হওয়ায় অনেকেই বাংলা মাসের কোন বিয়ের তারিখ গুলো শুভ সে সম্পর্কে গুগলে সার্চ করে থাকেন। যেমনঃ যারা বৈশাখ মাসে বিয়ে করেন, তারা বৈশাখ মাসে বিয়ের তারিখ খুঁজে থাকেন। 

আবার যারা ২০২২ সালের ভাদ্র মাসে বিয়ে করতে চান তারা ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ২০২২ সম্পর্কে খুঁজে থাকেন। আবার যেহেতু ভাদ্র মাস বাংলা বারো মাসের একটি মাস, সে কারণে অনেকে ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ১৪২৯ লিখেও গুগলে সার্চ করেন। 

এভাবে বাংলা মাসের কোন বিয়ের তারিখ গুলো শুভ সেটি দেখে বিচার বিবেচনা করে দুজনের বিয়ে ঠিক করার কারণ হলো যেন যারা বিয়ে করতে চলেছেন তাদের ভবিষ্যৎ সুন্দর হয় ও তাদের জীবনে কোনো রকম অমঙ্গল না হয়।  একারণেই যখন হিন্দু ধর্মাবলম্বী কোন ছেলে ও মেয়ের বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন তার পরপরই তাদের জন্ম কুণ্ডলী দেখে  কোন মাসের কোন বিয়ের তারিখ টি তাদের জন্য সবচাইতে শুভ সেটি ঠিক করে ফেলা হয়।  

সুতরাং বুঝতেই পারছেন যদি আপনি একজন হিন্দু ধর্মাবলম্বী হয়ে থাকেন এবং আপনি ভাদ্র মাসে বিয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন তাহলে ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ১৪২৯ বা ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ২০২২ যেটিই বলুন না কেন, সে সম্পর্কে জানা থাকা অত্যন্ত জরুরী। 

ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ২০২২ঃ বিয়ের তারিখ ও লগ্ন

এখন আমরা চলে এসেছি আজকের আর্টিকেলের মূল অংশে৷ যারা এই বছর ভাদ্র মাসে বিয়ে করতে চলেছেন, তাদের জন্য আমি এখন জানাবো ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ২০২২ সম্পর্কে। আর যারা বাংলা ক্যালেন্ডার অনুযায়ী বিয়ের তারিখ ও লগ্ন জানতে চান, তাদের জন্যেও চিন্তার কারণ নেই৷ কারণ আমি একইসাথে বাংলা ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ১৪২৯ সম্পর্কেও উল্লেখ করবো। ভাদ্র মাসে তিনটি তারিখ বিয়ের জন্য সবচেয়ে শুভ। সেগুলো হলো –

০১। ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ২০২২ঃ ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ১৪২৯ 

বাংলা সনের তারিখঃ ০১ ভাদ্র, ১৪২৯ 

ইংরেজি সন অনুযায়ী তারিখঃ ১৮ আগস্ট, ২০২২

বারঃ বুধবার 

লগ্নঃ এ তারিখে বিয়ের জন্য সবচেয়ে শুভ লগ্ন হচ্ছে রাত বারোটা সাইত্রিশ মিনিট তিন সেকেন্ড থেকে রাত একটা পাঁচ মিনিট পয়তাল্লিশ সেকেন্ডের মধ্যে। 

০২। ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ২০২২ঃ ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ১৪২৯ 

বাংলা সনের তারিখঃ ২ ভাদ্র, ১৪২৯ 

ইংরেজি সন অনুযায়ী তারিখঃ ১৯ আগস্ট , ২০২২

বারঃ বৃহস্পতিবার

লগ্নঃ এই তারিখে বিয়ে করতে চাইলে বিয়ের লগ্ন হচ্ছে রাত এগারোটা বিশ মিনিট ঊনত্রিশ সেকেন্ড থেকে রাত বারোটা নয় মিনিট ঊনচল্লিশ সেকেন্ডের মধ্যে। আবার পুনরাত্রি একটা তেত্রিশ মিনিট ঊনচল্লিশ সেকেন্ড থেকে রাত তিনটা বাইশ মিনিট চুয়ান্ন সেকেন্ডের ভেতরেও আরেকটি শুভ লগ্ন রয়েছে। 

০৩। ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ২০২২ঃ ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ১৪২৯ 

বাংলা সনের তারিখ ২৪ ভাদ্র, ১৪২৯ 

ইংরেজি সন অনুযায়ী তারিখঃ ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২২

বারঃ শুক্রবার

লগ্নঃ এ তারিখের বিয়ের লগ্ন হলো সরাত্রি বারোটা একান্ন মিনিট একত্রিশ সেকেন্ড থেকে রাত চারটা এগারো মিনিট পঞ্চান্ন সেকেন্ডের মধ্যে। 

যারা ভাদ্র মাসে বিয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তাদেরকে এই তিনটি তারিখের মধ্যে যেকোনো একটি তারিখ বেছে নেয়ার পরামর্শ থাকবে৷ সাথে ইংরেজি তারিখটিও সঠিকভাবে মিলিয়ে নেবেন৷ এতে করে নিজেদেরই সুবিধা হবে৷ 

শেষ কথা 

এটুকু ছিল ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ২০২২ সম্পর্কে আজকের বিস্তারিত আলোচনা। আশা করছি ভাদ্র মাসের কোন বিয়ের তারিখ ও লগ্ন আপনাদের জন্য সবচাইতে শুভ সেটি সম্পর্কে আপনাদের আরো কোনো সন্দেহের অবকাশ নেই।

তবে এক্ষেত্রে বলে রাখা ভালো আমি এখানে তারিখের সাথে যে লগ্ন উল্লেখ করেছি সেটি শুধুমাত্র বাংলাদেশে বসবাসকারী মানুষের জন্যই প্রযোজ্য।  যারা ভারতে বসবাসকারী রয়েছেন তারা চাইলে এখানে উল্লেখিত সময়ে থেকে ৩০ মিনিট সময় কমিয়ে লগ্ন নির্ধারণ করে নিতে পারেন।  কারণ বাংলাদেশের সাথে ভারতের সময়ের পার্থক্য হলো আধা ঘন্টা। 

আশা করি যারা ভাদ্র মাসের বিয়ের তারিখ ১৪২৯ সম্পর্কে খুঁজছিলেন, তাদেরকে আমি সঠিক তথ্য দিতে পেরেছি। তাই যদি এই মাসে আপনারা বিয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন, তাহলে এই দিন ও লগ্ন অনুসারে বিবাহ সম্পন্ন করতে পারেন। আপনাদের জন্য রইলো অনেক শুভকামনা। যদি আজকের লেখাটি আপনাদের ভালো লেগে থাকে, তাহলে এটি নিজের পরিবার ও বন্ধুবান্ধবদের সাথে শেয়ার করে আমাদের পাশেই থাকুন।

Leave a Comment

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Scroll to Top